বন্ধ করুন

জেলা শাসক বার্তা

জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এর ডেস্ক থেকে

ডিএম

জেলার নাম ‘মুর্শিদাবাদ’ এসেছিল মুর্শিদকুলী খানের শাসনকালে বাংলার রাজধানী ছিল মুকসুদাবাদ নামে পরিচিত স্থান থেকে। ব্রিটিশদের আবির্ভাবের আগে মুর্শিদাবাদ শহরটি ছিল বাংলার রাজধানী। ভারতীয় ইতিহাসে এর তাত্পর্য রয়েছে কারণ ১৭৫৭ সালে ব্রিটিশরা সিরাজউদ্দৌলাকে পলাশীর যুদ্ধে পরাজিত করেছিল, এর পরে পুরো জাতিটিকে ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের অধীনে আনা হয়েছিল। ব্রিটিশদের দ্বারা বাংলা বিজয়ের পরেও মুর্শিদাবাদ কিছুকাল প্রশাসনের আসন থেকে যায়।

মুর্শিদাবাদ পৌরসভার বারহামপুর এবং সংলগ্ন অঞ্চলগুলি এখনও মসজিদ, সমাধি এবং উদ্যান সহ নবাবদের স্মৃতি বহন করে এবং হাতির দাঁত, স্বর্ণ ও রৌপ্যের সূচিকর্ম এবং সিল্ক বুনন খোদাইয়ের মতো শিল্পগুলি বজায় রাখে। আকর্ষণীয় স্থান হ’ল নিজামত কিলা (নবাবদের দুর্গ),হাজারোড়ুয়ারি প্যালেস (এক হাজার দরজার প্রাসাদ), মতি ঝিল (মুক্তার হ্রদ), মুরাদবাগ প্রাসাদ এবং খুশবাগ কবরস্থান হিসাবেও পরিচিত। মুর্শিদাবাদ আজ কৃষিকাজ, হস্তশিল্প এবং রৌদ্রশিল্পের একটি কেন্দ্র। ১৭৫৭ সালে পলাশির যুদ্ধের পরে, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি প্রধান পদ গ্রহণ করে এবং ১৭৬৫ সাল পর্যন্ত তারা নবাবদের মাধ্যমে বাংলা, বিহার এবং ওড়িশায় রাজত্ব করেছিল। রাজধানী কলকাতায় স্থানান্তরিত হওয়ার পরে মুর্শিদাবাদ এর গুরুত্ব হারিয়ে ফেলল। আজও মুর্শিদাবাদ তার ঐতিহাসিক তাত্পর্য্যের জন্য দেশজুড়ে পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। ধুলিয়ানের নিকটবর্তী গঙ্গা নদীটি পদ্মা (যা বাংলাদেশের দিকে প্রবাহিত হয়) এবং ভাগীরথী (যা পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণে প্রবাহিত হয়) দ্বিখণ্ডিত। ফারাক্কা ব্যারেজে দক্ষিণ বঙ্গ এবং উত্তরবঙ্গের মধ্যে প্রধান সংযোগ সড়ক রয়েছে।

মুর্শিদাবাদ সদর দফতরটি বারহামপুরের সাথে ভৌগোলিকভাবে রাজ্যের মাঝখানে অবস্থিত এবং নিম্ন গঙ্গা উপত্যকায় কেন্দ্রীয়ভাবে অবস্থিত। জেলার আয়তন ৫,৫৫০ বর্গকিলোমিটার (২ ,১৪০ বর্গ মাইল)। এটি গঙ্গার প্রাচীন চ্যানেল ভাগীরথী দ্বারা প্রায় সমান দুটি অংশে বিভক্ত করা হয়েছে। পশ্চিমে ট্র্যাক্টটি, যা রাড় নামে পরিচিত, শক্ত কাদামাটি এবং নোডুলার চুনাপাথর নিয়ে গঠিত। বাগরি বা পূর্ব অর্ধেকটি পূর্ববাংলার পলল সমভূমির অন্তর্গত। ২০০১ সালের আদম শুমারি অনুসারে, বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক সংস্কৃতির ৭১.০২ লক্ষ মানুষ এই জেলার ২৬ টি ব্লক এবং ৭ মিউনিসিপালিটি পৌরসভায় শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছেন।

প্রশাসনিক কার্যাদি ডিজিটাল গভর্নেন্স বা ই-গভর্নেন্সের ধারণার উত্থানের সাথে সাথে একটি দৃষ্টান্তে পরিবর্তন এনেছে। আয়ের শংসাপত্র জারি, আবাসিক শংসাপত্র জারি, মোটরযান নিবন্ধন, অনুমতি প্রদান, ভূমি মাধ্যমে ভূমি রেকর্ড, কন্যাশ্রী প্রকলপ, জাতের শংসাপত্র জারি ইত্যাদি বিভিন্ন পরিষেবা প্রদানের সময় জেলা একটি ই-গভর্নেন্স সংস্কৃতি প্রচার করছে স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা একটি অগ্রাধিকার অর্জন করে তথ্য প্রযুক্তি ক্ষেত্রে বিপ্লব এনেছে সরকারী অফিসে। এই ওয়েবসাইটটি এই জেলার সমস্ত বিভাগ এবং বিভাগ দ্বারা সম্পন্ন সর্বাত্মক কার্যক্রমের তথ্য সামগ্রিক উপায়ে সরবরাহ করবে। দরপত্র আহ্বান, নিয়োগ ও ফলাফল, বিভিন্ন বিভাগের গুরুত্বপূর্ণ নোটিস, সার্কুলার ইত্যাদি নিয়মিতভাবে আপলোড করা হচ্ছে যাতে নাগরিকরা যাতে ব্যয় না করে এ জাতীয় তথ্য সংগ্রহ করতে জেলা সদরে ভ্রমণ করতে পারেন।

আমি এই ওয়েবসাইটটির জন্য ডেটা সংগ্রহ এবং সংকলনের সাথে জড়িতদের কঠোর পরিশ্রম এবং উত্সর্গকে স্বীকার করি। আমি সংশ্লিষ্ট সকলের কাছ থেকে এই ওয়েবসাইটটির আরও উন্নতির জন্য পরামর্শ এবং মন্তব্যকে স্বাগত জানাই।

শ্রী শরদ কুমার দ্বিভেদী , আইএএস

জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও কালেক্টর

মুর্শিদাবাদ

dm-mur-wb[at]nic[dot]in

dm[dot]murshidabad[at]gmail[dot]com